মন ভাইরাস

উঁচানিচা দাঁত আর পুতিপুতি চোখে,
তবু সুন্দরী তুই, গেছি আমি বখে।
মনে ধরা ভাইরাসে, হিড়িম্বা দেবী,
ঢুলু চোখে মায়া নেশা, লা-বিউ বেবী!

বেশি বেশি হরমোনে কল্পনা ঘোড়া,
খাঁদাবোঁচা মুখে তার  বড় বড় ফোঁড়া …
তাতে কি-বা আসে যায়, মন ভরা সুখে,
যাস নারে ছেঁড়ে তুই, ঘাঁই লাগে বুকে!

 

(৭-ফেব্রুয়ারী-২০১৭)

Posted in Uncategorized | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

পুড়ে পুড়ে ধোঁয়া উড়ে

heartburn

উড়ে উড়ে, গেল দুরে, যোগাযোগ বন্ধ,
পুড়ে পুড়ে, ধোঁয়া ওড়ে, নাকে আসে গন্ধ।
যায় যাক, দুরে থাক, থাকে যদি ওয়াইফাই,
ফেসবুক, চ্যাট খুব, সেলফিটা মিস নাই।

ফোন দেবে, এই ভেবে, গেলে যদি সব্বাই,
চুপচাপ, হতবাক, চিন্তায় ধুর্-ছাই।
ঘোরা শেষে, অবশেষে, ফেরা ছাড়া গতি নাই,
দিন গুনে, টেনশনে, নীড়ে মরি অযথাই।

(১৯-ডিসেম্বর-২০১৬)

Posted in Uncategorized | Tagged | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

নীল ছড়া

Neel-chhora

অত্যাচারে স্ব-সমর্পন,
ক্ষতবিক্ষত শেষে হামলা;
বাষ্পে ফোলা এ বদন,
অসহায় শেষ মামলা।

স্মৃতির রং ডলে ডলে,
ধুয়ে ফেলা নীল কষ্ট;
দুনয়নে ছড়া ফলে,
মায়াগুলো বড় স্পষ্ট।

তীব্র মায়া ভালবাসা,
ব্যাথায় বিবস বলি হায়;
স্মৃতিভীড়ে থাকে ঠাসা,
যাচ্ছে, দেখি অসহায়।

স্নেহের আধার হারায়,
নীলাকাশে তারা বেশে;
হাসিমুখ স্মরি মায়ায়,
কাঁদি স্মরণের শেষে।

==

(২০-জুলাই-২০১৫)

Posted in Uncategorized | Tagged , | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

সংযমেতে থাকছি বেশ!

চপ-পিঁয়াজু, বুট-ছোলা,
খেতাম রোজই দুই বেলা!
এখন মাস এই সংযমে,
একবেলাতে তাই কমে!

হালিম-খেজুর-শরবতে,
খেতাম সেতো রোজ বটে!
এই বেলা এই সংযমে,
একবেলাতে তাই কমে!

মাছের পেটি, দুধ-ভাতে,
থাকতো রোজ-ই দই পাতে!
সামলে চলার সংযমে,
একবেলাতে তাই কমে!

সব কিছুর-ই দাম চড়া,
খাচ্ছে মফিজ সব ধরা!
খাদ্য বিলাস রঙঢঙে,
শিক্ষা বিরাট সংযমে!

পেট খালি তাই মেজাজ টং,
কম সময়ে কাজের ঢং;
লেট অফিসে আর্লি শেষ,
সংযমেতে থাকছি বেশ!

==

(২৪-জুন-২০১৬)

Posted in Uncategorized | Tagged | ১ টি মন্তব্য

স্মৃতিকাতর …

ইচ্ছে করে চুপটি করে বাবার বুকে লুকিয়ে থাকি,
তিন বেলাতে ছোট্ট হয়ে শুধুই মায়ের আদর মাখি।
সন্ধ্যা বেলার গল্প দাদু, কিংবা মাঠের বন্ধুরা সব,
আবার যদি পেতাম ফিরে, হুল্লোড়ে সব হোক কলরব!

কিংবা ধরো দাদুর কাছে, হতেম হিরো বানান বলে,
পাটকাঠিতে আগুন বিড়ি, ধরলে দিতো কানটা মলে!
বৃষ্টি স্রোতে নৌকা শোলা, কারটা আগে ডুবলো ঢিলে,
আমড়া পাতা নুনের সাথে, খাচ্ছি মোরা সবাই মিলে …

মুরগী ছানা ফুটলো বলে, গুলতি ঢিলে কাক তাড়ানো,
কুঁড়িয়ে গাঁথা শিউলি মালা, শিশির ভেঁজা ঘাস পাড়ানো।
শীত সকালে ওম রোদে ঐ, রসের ভাঁড় আর পিঠার মেলা,
বাঁশঝাড়েতে চড়ুইভাতি, সন্ধ্যা দুপুর শুধুই খেলা …

পড়লো মনে হঠাৎ করেই, গুমঢ়ে কাঁদে মনটা শুধু,
সব হারিয়ে স্মৃতির জাবর, যন্ত্র জীবন মরুর ধূ-ধূ …

==
(১৭-জুন-২০১৬)

Posted in Uncategorized | Tagged | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

বিশিষ্ট ভদ্দরনোক

ভালোচনায় মন বসেনা, কেমন উড়ু উড়ু,
খাওয়া দাওয়ার ব্রেকগুলো যে কখন হবে শুরু …
হামলে পড়া ভক্ষণে,
গরীব সাহেব লক্ষণে!
চৌদ্দ পুরুষ নাঙ্গা ভূখা, বুকটা দুরু দুরু।

কানের কাছে বকর বকর, মনের জমা কথা,
অডিয়েন্সে অন্য কারো, মাথায় ধরায় ব্যাথা,
ধৈরা দিলে চটকনা,
আইডিয়াটা মন্দ না,
সেমিনারে আইছো ক্যারে, পার্কে যা না ব্যাটা!

Posted in Uncategorized | Tagged | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

আমায় তোরা ধর্ ঠেসে

চিকন দাঁড়ি সুরমা কালি, শেয়ার দেখেই যায় বোঝা,
উত্তেজনায় দু-চার হালি, কাঁঠাল পাতা খুব মজা।
বাতাস গরম এবার বুঝে, ল্যা’ঞ্জা লুকায় ছাগ বেশে,
মনটা ফুঁসে মুগুর খুঁজে, আমায় তোরা ধর্ ঠেসে।

কূয়াঁর ব্যাঙে সাগর দেখে, মুই কি হনু ভাব নিয়ে,
আবেগ ঘন উথলে ফেঁপে, মার ফুটানি – ওও ইয়ে।
নার্সিজমের কতই ঢং, সেলফি তোলে ডাকফেসে,
ফাঁটলো বুঝি রেগেই টং, আমায় তোরা ধর্ ঠেসে।

উত্তেজনায় বুঁদ হয়ে যাই, লাগামছাড়া রাগের নাটাই,
লক্ষ্যে তখন চরম ধোলাই, গণ্ডা-কড়ায় হিসাব মিলাই।
এমনতর গরম দিনে, ব্যাথায় কোঁকাই দিন শেষে,
ক্লান্তি ভরা শেষের সিনে, আমায় তোরা ধর্ ঠেসে।

Posted in Uncategorized | Tagged | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

প্রতীক্ষায় ইচ্ছাপূরণ

দেখতে পাহাড় আকাশ ছোঁয়া, চাই যে যেতে ছুটে,
ইচ্ছেগুলো ঘরের কোনে, মরছে মাথা কুটে।
কাঁধের পরে ভুতের বোঝা, দেখাচ্ছে যে ভয়,
চোখ এড়িয়ে ঘর পালানো, আর যে হবার নয়।

শিশির ভেজা ঐ মেঠোপথ, কুঞ্জবনের ছায়া,
ডাকছে মোরে আয় কাছে আয়, স্বপ্নরূপের মায়া।
মেঘসাদা ঐ কাঁশবন আর, কুলকুল বয় নদী,
তপ্ত প্রাণে বর্ষা জোয়ার, যেতাম সেথায় যদি।

নামতো প্রিয় স্বর্গ নিয়ে, সেই সে ঘোরের মাঝে,
মন ভেজাবো সেই খোরাকে, সকাল দুপুর সাঁঝে।
দেয়াল ভেঙ্গে মুক্ত হতে, জমাচ্ছি যে জোর,
দম ফুরায়ে কাটছে নিশি, প্রতীক্ষাতে ভোর …

Posted in Uncategorized | Tagged , , | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান

বৃষ্টি কড়চা

ধুত্তারি ছাই মাথা,
উল্টে গেলে ছাতা,
খিলখিলিয়ে হাসির তোড়ে, ভাবের চরম টা-টা!

ঝপাৎ ভিজে শেষ,
নায়ক বাবু বেশ!
গাড়ির চাকায় জল-কামানে, নোংরা কাপড়-কেশ।

বানের মত এসে,
যাচ্ছে সবি ভেসে,
ময়লা-রঙিন স্বচ্ছ-পানি, একসাথে সব মেশে।

শহর থেকে দুরে,
আসিস যদি ঘুরে,
ডুবছে সেথায় ফসল জমি, বৃষ্টি করুণ সুরে।

উদাস বসে ঘরে,
স্মৃতির ঘোড়া চড়ে …
মন-বরষে কপোল ভেঁজা, তোমায় মনে পড়ে।

Posted in Uncategorized | Tagged | ১ টি মন্তব্য

প্যারা

প্যারা প্যারা প্যারা … জীবন ছ্যাড়াব্যাড়া!
তারপরেতেও মৌজে থাকে, বেকুব হতচ্ছাড়া।

ধপাস মেঝে, প্রান্তে শুয়ে, কোঁকায় বাতের ব্যাথা ..
গরম স্যাকেও ফেল মেরেছে, সামলাবে কে ল্যাঠা?

নাক কলেতে গরম পানি, ঢুকলো গলায় ব্যাঙ,
মাথার ভারে নাইরে দিশা, মচকালো এক ঠ্যাঙ!

ঘুরতে মেলায় ঠান্ডা পকেট, সোনার দামে খাওয়া,
ঝুলছে গলায় ক্লান্ত খুকি, শান্তি হল হাওয়া!

Posted in Uncategorized | Tagged , | এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান